Mamata angry with Subhendu

শুভেন্দু অধিকারী থাকলে প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে যাবেন না মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়

আজ অর্থাৎ শুক্রবার পশ্চিমবঙ্গের ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শন করার কথা ভারতের প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদির (Narendra Modi)। ক্ষয়ক্ষতির মোকাবিলা কি করে করা যাবে তা নিয়ে প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় (Mamata Banerjee)। কিন্তু বৃহস্পতিবার রাত থেকেই এই বিষয়টি নিয়ে কিছু জটিলতা তৈরি হয়েছে। যত সম্ভব, মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের ওই বৈঠকে যাবেন না। নবান্নের পক্ষ থেকে এই বিষয়টি জানানো হয়েছে দিল্লিতে।

সূত্রের খবর, যেহেতু প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে উপস্থিত থাকবেন (Suvendu Adhikari) শুভেন্দু অধিকারী, তাই সেই বৈঠকে যাবেন না (Mamata Banerjee) মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এই দিন রাতে দিল্লি থেকে নবান্ন থেকে জানানো হয় যে, মুখ্যমন্ত্রী এবং প্রধানমন্ত্রীর বৈঠকে কেন্দ্রীয় মন্ত্রী ধর্মেন্দ্র প্রধান, এই রাজ্যের কেন্দ্রীয় মন্ত্রী দেবশ্রী চৌধুরী, রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড় এবং বিজেপি বিধায়ক শুভেন্দু অধিকারী।

Cyclone Yaas Why this discrimination
Image Source : Google

এই তালিকা জানার পরে মুখ্যমন্ত্রী বলেন যে তিনি কিছুতেই যাবেন না বৈঠকে। কেন্দ্রীয় মন্ত্রী অথবা রাজ্যপাল থাকবেন এই অবধি ঠিক আছে, কিন্তু সেই বৈঠকে কেন শুভেন্দু অধিকারী থাকবেন এই প্রশ্ন করেছেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শুভেন্দু কে বিজেপি রাজ্য বিধানসভার বিরোধী নেতা করবে বলে ঘোষণা করেছিলেন কিন্তু এখনো আনুষ্ঠানিকভাবে সেই পদে বসানো শুভেন্দু বাবু। আমরা সকলেই জানি মমতাকে হারিয়ে নন্দীগ্রাম থেকে জিতে আসা বিধায়ক হলেন শুভেন্দু বাবু।

সামান্য একটি বৈঠক কে রাজনৈতিক করে তোলা হচ্ছে বলে মনে করছেন মুখ্যমন্ত্রী। ওই বৈঠকে শুধুমাত্র মুখ্যসচিব আলাপন বন্দ্যোপাধ্যায়ের থাকার কথা ছিল। মমতা ব্যানার্জির এই আপত্তির কথা জানানো হয়েছে দিল্লিতে। তবে এখনো পর্যন্ত কোনো উত্তর পাওয়া যায়নি দিল্লি থেকে। বৃহস্পতিবার সন্ধ্যা পর্যন্ত যে কর্মসূচি তৈরি হয়েছিল সেখান থেকে জানা গিয়েছিল যে, নরেন্দ্র মোদী শুক্রবার দুপুর আড়াইটা থেকে ৩:৩০ পর্যন্ত মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠকে বসবেন। এরপর তারা একেক পরিদর্শন করবেন দুর্ঘটনা কবলিত এলাকা গুলি।

বৃহস্পতিবার বিকালে প্রধানমন্ত্রীর পরিদর্শনে আসা নিয়ে খোঁচা দেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তিনি জানান যে, প্রধানমন্ত্রী ওড়িশা তিনটি জায়গায় যাচ্ছেন। আর কোথাও তিনি যাবেন না। আরো অনেক জায়গা রয়েছে যেখানে ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাব পড়েছে। কিন্তু সেখানে তিনি কেন যাবেন না আমি জানিনা।

আরো পড়ুন: বৃষ্টি পরতেই কয়েকশো কবর চোখে পড়লো যোগীরাজ্যে

তবে শেষ পর্যন্ত বৈঠক যদি হয়, তাহলে ভোটের পরে এটাই হবে তাদের প্রথম সাক্ষাৎকার।। কয়েকদিন আগে দুজনের মধ্যে ভার্চুয়াল বৈঠক হলেও মুখোমুখি তাদের এখনো দেখা হয়নি।